Bangla News Line Logo
bangla fonts
৩ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬, রবিবার ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ৯:৫০ অপরাহ্ণ
facebook twitter google plus rss
সর্বশেষ
মোহনগঞ্জে শিক্ষা বৃত্তি প্রদান নেত্রকোণায় হুমায়ূন আহমেদ’র জন্মদিনে নানা আয়োজন নেত্রকোণায় শুরু রাস উৎসব দুর্গাপুরে মুক্তি চেতনায় ৭১’র প্রথম বর্ষপূর্তিতে গুনীজন সংবর্ধনা কলমাকান্দায় যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

শিশুর ছিন্ন মস্তক : পাশবিক নির্যাতনের পর হত্যা ধারনা পুলিশের


নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলানিউজলাইন ডটকম:3:08:19 PM07/19/2019


শিশুর ছিন্ন মস্তক : পাশবিক নির্যাতনের পর হত্যা ধারনা পুলিশের

 নেত্রকোণায় গলা কেটে শিশু হত্যার পর শিশুটির  মস্তক নিয়ে  হরিজন পল্লীতে মদ খেতে গিয়ে  স্থানীয়দের গণপিটুনিতে যুবক নিহতের ঘটনায় থানায় পৃথক দুইটি মামলা হয়েছে। পুলিশ ধারণা করছে, শিশুটিকে পাশবিক নির্যাতনের পর হত্যা করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার মধ্য রাতে এই জোড়া খুনের দুইটি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন ময়মনসিংহ রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি আক্কাস উদ্দিন ভুইয়া।
এ সময় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, জেলা পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের হত্যার ঘটনা তদন্তের বিভিন্ন দিক নির্দেশনা দেন। শিশুর মস্তক ছিন্ন করে বহন করায় হত্যাকান্ডটি চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। তবে এতে আতংকিত হওয়ার কিছু নেই। এটি একটি নির্মম হত্যাকান্ড। এর সাথে পদ্মাসেতুতে মাথা দরকার এমন গুজবের সাথে কোন সম্পর্ক নেই।
 আলোচিত এই জোড়া খুনের ঘটনায়  শুক্রবার দুপুরে নিজ কার্যালয়ে মিলনায়তন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে আসেন  পুলিশ সুপার জয়দেব চৌধুরী।  এ সময় তিনি বলেন, শিশুর বাবা রইছ উদ্দিন যুবক রবিনসহ অজ্ঞাতনামাদের আসামি ও যুবক রবিন হত্যায় নেত্রকোণা মডেল থানার এসআই রফিক বাদি হয়ে অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে থানায় মামলা হয়েছে।
 পুলিশ সুপার বলেন, রবিন ও  শিশুর বাবা রইছ উদ্দিন একই এলাকার বাসিন্দা। তারা পরস্পরের পূর্বপরিচিত। এই হত্যাকান্ড একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা উল্লেখ করে রবিনকে চিহ্ণিত মাদকাসক্ত বলে দাবি করেন পুলিশ সুপার।
প্রাথমিক তদন্তের আলামতের বরাত দিয়ে জেলা পুলিশের এই শীর্ষ কর্মকর্তা বলেন, পাশবিক নির্যাতনের পর শিশু সজিবকে মাদকাসক্ত রবিন হত্যা করেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এই হত্যার সাথে পদ্মাসেতুতে মাথা লাগবে এমন গুজবের কোন সম্পর্ক নেই। তিনি জেলা ও দেশবাসির উদ্দেশ্যে বলেন, এই ঘটনায়  আতংকিত হওয়ার কিছু নেই।
পুলিশ সুপার বলেন, ঘটনার পর জব্দকৃত রবিনের মোবাইল ফোন প্রযুক্তি ব্যবহার করে তদন্ত করা হচ্ছে। ময়না তদন্ত শেষে স্পষ্ট বলা যাবে হত্যার আগে শিশুটির ওপর পাশবিক নির্যাতন চালানো হয়েছিল কিনা।

সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আশরাফুল আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মোঃ শাহজাহান মিয়া, নেত্রকোণা মডেল থানার ওসি তাজুল ইসলামীসহ জেলা পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
বৃহস্পতিবার  শহরের কাটলি এলাকায় একটি নির্মিয়মান বাড়ির টয়লেটে একই এলাকার রিক্সাচালক রইছ উদ্দিনের শিশু পুত্র সজিবকে (৮) গলা কেটে হত্যা করে একই এলাকার আরেক রিক্সাচালক যুবক রবিন। পরে রবিন শিশুটির ছিন্ন মস্তক ব্যাগে করে নিয়ে শহরের হরিজন পল্লীতে মদ খেতে গেলে স্থানীয়দের নজরে পড়ে।এ সময় রবিন দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করলে স্থানীয়রা  ধাওয়া করে নিউটাউনের অনন্তপুকুরপাড়ে তাকে ধরে গণপিটুনি দেয়। রবিন ঘটনাস্থলেই মারা যান। পরে পুলিশ শিশু সজিব ও রবিনের লাশ উদ্ধার করে নেত্রকোণা আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠান।

বাংলানিউজ লাইন.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: