Bangla News Line Logo
bangla fonts
১১ মাঘ ১৪২৬, শুক্রবার ২৪ জানুয়ারি ২০২০, ৮:১৮ অপরাহ্ণ
facebook twitter google plus rss
সর্বশেষ
নেত্রকোণায় বেরী বাধ নির্মাণ বন্ধের দাবিতে কৃষকদের মানববন্ধন নেত্রকোণায় একাত্তরের দালালকে ভাষাসৈনিক বানানোর অপচেষ্টার অভিযোগ সিনহাসহ ১১ জনের নামে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের নির্দেশ ই-পাসপোর্ট প্রকল্পে বাংলাদেশ আরো একধাপ এগিয়ে যাবে: প্রধানমন্ত্রী কেন্দুয়ায় মাদ্রাসা ছাত্রী ধর্ষণ: প্রতিবাদে মানববন্ধন

নেত্রকোণায় মগড়া নদীর দখলদার উচ্ছেদ অভিযান শুরু


গজনবী বিপ্লব, বাংলানিউজলাইন ডটকম:4:50:28 PM12/23/2019


নেত্রকোণায় মগড়া নদীর দখলদার উচ্ছেদ অভিযান শুরু

নেত্রকোণায় মগড়া নদীর দখলদার উচ্ছেদ অভিযান শুরু করা হয়েছে।
সোমবার (২৩ ডিসেম্বর) এই  এই অভিযান শুরু করে জেলা প্রশাসন, জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড ও সদর উপজেলা প্রশাসন যৌথভাবে।
সকাল ৯ টার দিকে শহরের সতপাইয়ের গাইনপাড়া এলাকা থেকে শুরু করা হয় দখলদার উচ্ছেদ অভিযান। এসময় অনেককেই দেখা যায় নিজেরাই তাদের দখলে থাকা নদীর তীরের স্থাপনা সড়িয়ে নিচ্ছেন। এখনও নাগাদ দখল উচ্ছেদ অভিযান কোন বাঁধার মুখে পড়েনি।
সদর উপজেলা সহকারি কমিশনার ভূমি বুলবুল আহমেদ জানান, সকাল থেকে বিকাল সাড়ে ৪টা নাগাদ ৪০টির মত স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। উচ্ছেদ অভিযানে প্রয়োজনীয় সংখ্যক পুলিশ, র‌্যাব, আনসারের সদস্য কাজ করার পাশাপাশি জেলা প্রশাসক মঈনউল ইসলামের নেতৃত্বে নির্বাহী হাকিমেরা তদারকি করছেন। এক্সেভেটর মেশিনসহ ৬০ জন শ্রমিক দুইটি দলে ভাগ হয়ে উচ্ছেদ অভিযান চালাচ্ছেন।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো : আক্তারুজ্জামান জানিয়েছেন, তালিকায় ৩১৬ জন দখলদারের নাম রয়েছে। আমাদের টলারেন্স, একেবারে জিরো টলারেন্স কোন রাজনৈতিক ব্যাক্তিবর্গের  বিল্ডিং থাকে, স্থানীয় প্রভাবশালীদের বিল্ডিং থাকে, সরকারি আমলাদের বিল্ডিং থাকে সেগুলো কর্ণপাত করার আমাদের কোন সুযোগ নেই। আমরা জিরো টলারেন্স, কারণ দেশের জন্যে সকল  মানুষের জন্যে আমরা কাজটা বাস্তবায়নের উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। আমাদেরকে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন সবাই সহযোগিতা করছে। পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সুস্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে। আমরা জিরো টলারেন্স কাজটা শেষ করবো।
তিনি আরো জানান, আগামী ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে সিংহভাগ দখলদাররের নির্মিত স্থাপনা  উচ্ছেদ করার কাজ শেষ হবে। যেসব স্থাপনা নিয়ে আদালতে মামলা রয়েছে সেসব স্থাপনা আদালতের নির্দেশনামতে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
উদ্ধার নদীর জমি কাটাতারের মাধ্যমে ঘেরাও করে তাতে গাছ লাগিয়ে দেয়া হবে। যাতে আবারও দখলদারেরা সেই জমি দখলে নিতে না পারে বলেন তিনি।  
জেলা প্রশাসক মঈনউল ইসলাম বলেন, দখলদার তিনি যেই হোক না কেন কোন ধরণের ছাড় দেয়া হবে না। এবার মগড়ার বেহাত হওয়া তীরের জমি উদ্ধার করা হবে।

বাংলানিউজ লাইন.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:

জাতীয় -এর সর্বশেষ