Bangla News Line Logo
bangla fonts
১৭ ফাল্গুন ১৪২৭, মঙ্গলবার ০২ মার্চ ২০২১, ১:৪৯ পূর্বাহ্ণ
facebook twitter google plus rss
সর্বশেষ
মুক্তিযোদ্ধাকে কটাক্ষের প্রতিবাদে বিক্ষোভে উত্তাল নেত্রকোণা নেত্রকোণায় প্রতিবেশীর ঘর থেকে গৃহবধূর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার,আটক ২ বিদেশী ভাষার দাসত্ব করা চলবেনা- যতীন সরকার নেত্রকোণায় শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ মায়ের ভাষাই মাতৃভাষা

গৃহহীনদের লাঞ্ছনা দিনের অবসান


নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলানিউজলাইন ডটকম:5:48:20 PM01/23/2021


গৃহহীনদের লাঞ্ছনা দিনের অবসান

"আমরা হেভি খুশি। বুঝায়া কইতাম পারতাম না। কি যে ভালা লাগতাছে।এতোদিন নানেবানে ঘুইরা থাকছি।বাড়িঘর আছিল না। কিছুদিন ধইর‌্যা গ্যারামেই লতিফ নামের একজনের বাড়িতে ১২০০ট্যাহা ভাড়া দিয়া তাকতাম। বাড়া ঠিকমতন দিতা পারছি না। কত লাঞ্ছনা। অহন এইতার শেষ অইছে। প্রধানমন্ত্রী ঘর দিছেন। জাগা দিছেন। থাহনের একটা বাউ অইছে। শেখ হাসিনা অনেক দিন বাইচ্যা থাহুক।"

কথাগুলো বলার সময় নেত্রকোণার কেন্দুয়া উপজেলার দলপা ইউনিয়নের বৈখেরহাটি গ্রামের  মতিয়র রহমানের চোখেমুখে খুশির যেন বন্যা বইছে।

তিনি আজ শনিবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার  দেয়া ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান কর্মসূচিতে ঘর ও জমি পাওয়ার পর এই প্রতিনিধির সাথে কথা বলছিলেন।

মতিয়র নিজের  অভিব্যক্তি প্রকাশ করার সময় জানান, স্ত্রী মমিনা আক্তারকে সাথে  নিয়ে গ্রামের বাজারে একটি ছোট চায়ের দোকান চালান। তিন ছেলে এক মেয়ে নিয়ে ৫ জনের সংসারের খাওয়ার সংস্থান করতেই হিমশিম খাচ্ছেন।নিজের জমি, বাড়ি কিছুই নেই। এ অবস্থায় জমি বাড়ি পেয়ে অনেকটা নিশ্চিন্তে বাকি জীবনটা কাটাতে পারবেন।

একই উপজেলার নওপাড়া ইউনিয়নের দনাচাপুর গ্রামের দিনমজুর  দম্পতি টিটু দত্ত ও ললিতা সরকার। এক ছেলে ও এক মেয়েকে নিয়ে থাকেন গ্রামের কালি মন্দিরের জায়গায়।তিনিও প্রধানমন্ত্রীর দেয়া উপহার জমি-ঘর পেয়েছেন। সকালে প্রশাসনের কাছ থেকে দলিল হাতে পান তিনি। টিটু দত্ত বলেন, "রোজ কামকাজ কইরা যে ট্যাহা পাই এইতা দিয়া খাওয়নেরই অয় না। তাহি যেইডা এইডারে থায়ন কয়না। মন্দিরের জাগাতে কোনমতে থাকতাম।প্রধানমন্ত্রী আমরার গরীবের কথা ভাবছে। জমি-বাড়ি দিছে। আমরা খুউব কুশি। শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ। অনেকদিন বাচুক। প্রধানমন্ত্রী আমরার গরীবের মানুষ। আমরার কষ্ট বুঝে।"

"অহনো গরের কাম শেস অয়নাই। একটু বাহি আছে। দুইতিন দিনের মধ্যে শেষ অইবো। পরে নিজের বাড়িতে উঠবাম" যোগ করেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রীর দেয়া উপহার ঘর-জমি পেয়েএকই রকম খুশির  অভিব্যক্তি জানান, দলপা ইউনিয়নের দিনমজুর মো: কামরুজ্জামান। তিনি বলেন, "দলিল হাতে পাইছি। আমরা খুউব খুশি লাগতাছে।দুই তিন দিনের মধ্যে ঘরে উঠতে পারবো। কিছু কাজ বাকি আছে। দিনরাত কাজ করতাছে।"
জেলার খালিয়াজুরী উপজেলার খালিয়াজুরী ইউনিয়নের মুজবনগর গ্রামে ৭৩জনকে ঘর জমি দেয়া হয়েছে।এই গ্রামটির পুরোটাই সরকারি জমিতে। একযুগ আগে এখানে সরকারি জমিতে কয়েকজন বসতি করেন। তারাই নাম রাখেন মুজিব নগর। এই মুজিবনগরে প্রশাসন প্রধানমন্ত্রীর ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান কর্মসূচিতে ঘর নির্মাণ করে  দেয়। আজ দলিল হস্তান্তর করা হয়। ৬৫ বছরের ময়না মিয়া আজ ঘর-জমির দলিল হাতে পেয়ে দারুণ খুশি। তিনি বলেন, "মনে হচ্ছিল স্বপ্ন দেখছি। প্রধানমন্ত্রীকে আমরার  মেলা দোয়া রইল ।হেইন ভালা থাহুন।"একই গ্রামের নাসিমা আক্তার, ছেনু মিয়াও জমি,ঘরের দলিল পেয়েছেন হাতে। তারাও খুুব খুশি।

জেলা প্রশাসক কাজি মো: আব্দুর রহমান জানান, নেত্রকোণার দশ উপজেলায় মুজিববর্ষ উপলক্ষে  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদানের আওতায় ১হাজার ৩০টি পরিবারের মাঝে জমি ও গৃহ প্রদান করা হয়।

শনিবার সকালে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করার পর একযোগে জেলার ১০ উপজেলা পরিষদের হলরুমে পরিবারগুলোর হাতে দলিল তুলে দেয়া হয়।

তিনি আরো বলেন, সুপেয় পানি, টয়লেট, বিদ্যুতের সুবিধা দেয়া হয়েছে। এসব পরিবারের প্রতি প্রশাসন পরবর্তীতেও খেয়াল রাখবে। সরকারের বিভিন্ন সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায়  জীবনমান উন্নয়নে তাদেরকে যুক্ত করা হবে।
 জেলা প্রশাসক আরো জানান, ১হাজার ৩০টি পরিবারের মধ্যে কৃষক, দিনমজুর,শ্রমিক, রিক্সাচালক, ভিক্ষুক, প্রতিবন্ধী ভিক্ষুক,গৃহকর্মী,মৎস্যজীবী, মুচিসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ রয়েছেন।জেলার সদর উপজেলায় ৪৩ টি পরিবার, কেন্দুয়ায় ৫০, দুর্গাপুরে ৩৫,পূর্বধলায় ৫৩,কলমাকান্দায় ১০১,মোহনগঞ্জে ৩৬,আটপাড়ায় ৯৮, মদনে ১২৬,বারহাট্রায় ৪৫ ও খালিয়াজুরী উপজেলায় ৪৪৩টি পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর এই উপহার দেয়া হয়।
 
সকালে আটপাড়া উপজেলা পরিষদ হলরুমে উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আশরাফ আলী খান খসরু এমপি, সংসদ সদস্য অসীম কুমার উকিল। এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনার মোঃ কামরুল হাসান, জেলা প্রশাসক কাজি মোঃ আবদুর রহমান, জেলা পুলিশ সুপার মোঃ আকবর আলী মুনসী, জমি ও গৃহ প্রাপ্ত উপকারভোগীসহ সরকারি বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা।
একইসাথে পূর্বধলা উপজেলা পরিষদ হলরুম জমি ও গৃহ প্র্রদান উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল বীরপ্রতীক।

বাংলানিউজ লাইন.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: