Bangla News Line Logo
bangla fonts
২৯ কার্তিক ১৪২৬, বুধবার ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ১১:২৬ অপরাহ্ণ
facebook twitter google plus rss
সর্বশেষ
নেত্রকোণায় হুমায়ূন আহমেদ’র জন্মদিনে নানা আয়োজন নেত্রকোণায় শুরু রাস উৎসব দুর্গাপুরে মুক্তি চেতনায় ৭১’র প্রথম বর্ষপূর্তিতে গুনীজন সংবর্ধনা কলমাকান্দায় যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী নেত্রকোনায় ড. হুমায়ুন আহমেদের ৭১ জন্ম বার্ষিকী পালিত

ক্যাম্প ছেড়ে পালাচ্ছে রোহিঙ্গারা


কক্সবাজার প্রতিবেদক, বাংলানিউজলাইন ডটকম:12:59:15 PM08/28/2019


ক্যাম্প ছেড়ে পালাচ্ছে রোহিঙ্গারা
নানা কারণে ক্যাম্পে বসবাসরত কিছু রোহিঙ্গা ক্যাম্প ছেড়ে অন্যত্র পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে। ওইসব রোহিঙ্গার মধ্যে অনেকের বিরুদ্ধে মিয়ানমারে মামলা থাকায় তারা সে দেশে আর  ফিরতে চায় না। তাই প্রত্যাবাসনের কথা শুনে তারা দালালের মাধ্যমে ক্যাম্প ত্যাগ করছে সপরিবারে। কক্সবাজার উখিয়া-টেকনাফের বিভিন্ন পয়েন্টে স্থাপন করা চেকপোস্ট অতিক্রমকালে বিভিন্ন আইন প্রয়োগকারী সংস্থার লোকজন যাত্রীবাহী যানবাহনে তল্লাশি চালিয়ে এ পর্যন্ত প্রায় ৫৬ হাজার রোহিঙ্গা নাগরিককে উদ্ধার করে ক্যাম্পে ফেরত পাঠিয়েছে বলে জানা গেছে।
 
সূত্র জানায়, এ পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে ৭১২ জন রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করে উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্পে ফেরত পাঠানো হয়েছে। আবার বিভিন্ন অভিযোগে ৫৫২ জনকে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করা হয়েছে। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন সংগ্রাম কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও পালংখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এম গফুর উদ্দিন চৌধুরী জানান, আইন প্রয়োগকারী সংস্থার নজর এড়িয়ে অধিকাংশ রোহিঙ্গা সপরিবারে তাদের গন্তব্য স্থানে চলে যাচ্ছে। দেশের বিভিন্ন স্থানে পালিয়ে আশ্রয় নেওয়া এসব রোহিঙ্গাকে খুঁজে বের করে ক্যাম্পে ফেরত আনতে না পারলে প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া কখনও সফল হবে না।
 
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রোহিঙ্গাদের মধ্যে বিত্তশালী যারা, তারা স্বাচ্ছন্দ্যে ও স্থায়ীভাবে বাসের জন্য দেশের বিভিন্ন স্থানে অবস্থান করা স্বজনদের কাছে চলে গেছে। কিছু কিছু রোহিঙ্গা মালয়েশিয়াসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন স্থানে সপরিবারে পাড়ি জমিয়েছে। আবার অধিকাংশ হতদরিদ্র ছিন্নমূল পরিবার শহরে উপার্জনের মাধ্যমে বসবাসের জন্য ক্যাম্প ত্যাগ করেছে।
 
মাঝিরা জানায়, ক্যাম্প ত্যাগ করা লোকজনের মধ্যে এমন কিছু সন্ত্রাসী রয়েছে যারা পরিবার-পরিজন নিয়ে ক্যাম্পে আসার পর থেকে তাদের আর দেখা মেলেনি। এসব সন্ত্রাসীর বিরুদ্ধে মিয়ানমারে একাধিক মামলা থাকায় তারা প্রত্যাবাসন ইস্যুতে ভয় পাচ্ছে। যে কারণে আগেভাগেই ক্যাম্প ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছে। গত বৃহস্পতিবার বিকালে উখিয়া থানা সাত সদস্যের একটি রোহিঙ্গা পরিবার আটক করেছে। ওই রোহিঙ্গা পরিবার কুতুপালং মধুরছড়া ক্যাম্প থেকে সপরিবারে পালিয়ে যেতে চেয়েছিল। মরিচ্যা চেকপোস্টের পুলিশ সদস্যরা এসব রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করে থানায় ফেরত পাঠায়। ওই রোহিঙ্গা পরিবারের সদস্য অলিউল্লাহ জানায়, চট্টগ্রামের হালিশহর এলাকায় তাদের এক ছেলে গার্মেন্টে চাকরি করে। তাই তারা ছেলের কাছে যেতে চাচ্ছিল।
 

কক্সবাজার পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন  জানান, এ পর্যন্ত প্রায় ৫৬ হাজারের বেশি রোহিঙ্গাকে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা বিভিন্ন স্থান থেকে উদ্ধার করে ক্যাম্পে ফেরত পাঠিয়েছে। কিন্তু স্থানীয় ও রোহিঙ্গাদের মুখের ভাষা এবং চালচলন একই হওয়ায় শনাক্ত করা কঠিন হচ্ছে। এরপরও পুলিশ রোহিঙ্গাদের ওপর সজাগ দৃষ্টি রেখেছে, যাতে তারা ক্যাম্পের বাইরে কোথাও যেতে না পারে। এরপরও কিছু কিছু রোহিঙ্গা প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে বিভিন্ন জেলা শহরে আশ্রয় নেয়, সেখানকার আইন প্রয়োগকারী সংস্থা তাদের উদ্ধার করে আবার ক্যাম্পে ফেরত পাঠাবে বলে জানান তিনি।

বাংলানিউজ লাইন.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: