Bangla News Line Logo
bangla fonts
৪ আশ্বিন ১৪২৬, বৃহস্পতিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩:০৭ অপরাহ্ণ
facebook twitter google plus rss
সর্বশেষ
নেত্রকোণায় গৃহবধূ ধর্ষণের অভিযোগ, অভিযুক্ত গ্রেপ্তার প্রশাসন সেই নারীর দায়িত্ব নেয়ার পর চিকিৎসা শুরু পূর্বধলায় আলোর ফেরিওয়ালা বিদুৎসংযোগ:১২৬ বাড়ি আলোকিত নেত্রকোণায় বাউল সাধক রশিদ উদ্দিনের স্মরণ উৎসব নেত্রকোণায় দুর্গাপুজা উদযাপনে সভা

কলকাতাতে সর্ব ভারতীয় শাস্ত্রীয় নৃত্যোৎসব


বাবুল সাহা, কলকাতা থেকে, বাংলানিউজলাইন ডটকম,1:05:59 AM12/02/2018


কলকাতাতে সর্ব ভারতীয় শাস্ত্রীয় নৃত্যোৎসব

কলকাতাতে ক্যালকাটা ইউনিভার্সিটি ইনষ্টিটিউড অডিটরিয়মে আয়োজিত হয় ‘‘নিপুন নৃত্যোৎসব -২০১৮’’ শাস্ত্রীয় নৃত্যের মনোজ্ঞ অনুষ্টান।

অনুষ্ঠানটির আয়োজন করেছিল ‘‘নিপনু নৃত্যালয় নামের একটি শাস্ত্রীয় নৃত্যের প্রতিষ্ঠান।
এ নৃত্যেৎসব এ বছর দ্বিতীয় বর্ষে পদার্পন করল।
এই শাস্ত্রীয় নৃত্য সন্ধ্যায় উপস্থিত ছিলেন, কোলকাতার বিশিষ্ট শিল্পীগন।
১১ নভেম্বর প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করেন, প্রখ্যাত রবীন্দ্র সঙ্গীত শিল্পী প্রমিতা মল্লিক,বিশিষ্ট কত্থক নৃত্য শিল্পী ও কেন্দ্রিয় সঙ্গীত নাটক আকাদেমী পুরস্কার প্রাপ্ত ডঃ মালবিকা মিত্র এবং  নৃত্যশিল্পী ও সমালোচক জয়শ্রী মূখার্জী ।
নিপুন নৃত্যালয়ের পক্ষ থেকে নিপুন নৃত্যালয়ের কর্ণধার মনোজিৎ সাহা গুণী শিল্পীদের সম্বর্ধনা জ্ঞাপন করেন।
অনুষ্ঠানের সূচনা হয় গুরু পদ্মভূষন সি ভি চন্দ্রশেখর এর সুযোগ্য ছাত্র মনোজিৎ সাহার একক ভরতনাট্যম নৃত্য পরিবেশনা দিয়ে।
দেবি সরস্বতীর আরাধনার মাধ্যমে নৃত্য শুরু করেন তিনি ,নিবেদিত হয় সরস্বতী কৃত্যনম(শৃঙ্গার লহরী)  রাগ নিলাম্বরী ও তাল আদিতে নিবদ্ধ ছিল।

এরপর একক মনিপুরী নৃত্য পরিবেশন করেন, গুরু কলাবতী দেবীর ছাত্রী পূর্বিতা মূখার্জী। তিনি রাধার রুপবর্নর উপর সৃঙ্গার রসের আধারিত একটি নৃত্য পরিবেশন করেন।
এই সন্ধ্যায়  পরবর্তী নিবেদন নিপুন নৃত্যালয়ের শিল্পীদের দলগত ভরতনাট্যম নৃত্য। যেখানে প্রথমে পরিবেশিত হয় গনেশ কীর্তনম (আনন্দ তান্ডব গনপতি) দিয়ে যেটি হিন্দোলম রাগ ও আদি তাল নিবদ্ধ ছিল। এই নৃত্যটি কোরিয়গ্রাফি করেন নৃত্যশিল্পী মনোজিৎ সাহা। নিপুন নৃত্যালয়ের দ্বিতীয় নিবেদন ছিল ভরত নাট্যেম নৃত্যের সর্ববৃহত নৃত্যগদ বর্নম । এই বর্নমটি রামায়নের শ্রী রামচন্দ্রের উপর আধারিত ছিল। রাগ তোডি এবং তাল আদিতে নিবদ্ধ ছিল বর্নমটি । পরিবেশনাটি দর্শকদের মন জয় করে নেয়।
এই রামায়ন বর্নম এ যারা উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেন তারা হলেন, রাম ও বাল্মিকীর চরিত্রে মনোজিৎ সাহা, সীতা ও অহল্লার চরিত্রে দেবস্মিতা সাহা, লক্ষণ এর চরিত্রে দেবরাজ ভৌমিক, দশরথ-অমিত দাস, হনুমান ও বিস্বমিত্র চরিত্রে অরুনাভ বর্মন, জনক ও নারদের ভূমিকায় বিশ্বজিৎ গাইন, কৌশল্ল্যা রেশমী নন্দি, কৈকেয়ী সুস্মিতা সাহা, সুমিত্রা ,স্বপ্না সাহা প্রমূখ।
সম্পুর্ণ নারায়ন বর্নমটি সুন্দরভাবে কোরিয়গ্রাফী করেন, নৃত্যশিল্পী মনোজিৎ সাহা। রামায়ন বর্নমটিতে বিশেষ করে উল্লেখযোগ্য অংশগুলি হল অযোধ্যার পুত্রকামেষ্টি যঞ্চ। মিথিলার সীতার সয়ম্বর দস্যূ রতœাকরের বাল্মিকীতে পরিনিত হবার ঘটনা ,এছাড়া বিশেষ চরিত্র হিসাবে রাম,লক্ষণ,সীতা, দশরথ,রাবন,বাল্মিকী,নারদ,হনুমান, বিস্বামিত্র এবং অহল্যা বিশেষ ভাবে প্রশংসার দাবী রাখে।
এরপরে একক ভাবে পরিবেশিত হয় কবি জয়দেবের অষ্টপদী নামক নৃত্যপদটি। মনোজিৎ সাহার এটি একটি অনবদ্য পরিবেশনা, যা গুনিজন ও দর্শকদের মন ছুয়ে যায়। সুচারু অভিনয় ও সুন্দর অভিব্যাক্তির মাধ্যমে নৃত্যপদটিকে সুন্দরভাবে পরিবেশন করেন তিনি। এই অষ্টপদীটিতে  কৃষ্ণের বিরহের কথা বর্ননা করা হয়। এই নৃত্যপদটি কোরিয়গ্রাফী করেন, বিশ্ববরেন্য নৃত্যগুরু পদ্মভূষন প্রফেসার সি ভি চন্দ্র শেখর। নিপুন নৃত্যালয় তাদের পরিবেশনা শেষ করেন সুন্দর একটি তিল্লানার মাধ্যমে। যেটি রাগ হিন্দোলম্ এবং তাল আদিতে নিবদ্ধ ছিল। এই তিল্লালানার ভগবান শীবের গুনকীর্তন করা হয়েছে এই নৃত্যপদটি কোরিয়গ্রাফি করেন, মনোজিৎ সাহা।
 

এরপর একক কত্থক নৃত্য পরিবেশন করেন সৌরভ রায়। গুরু ডঃ মালবিকা মিত্রের সুযোগ্য ছাত্র দক্ষতার সহিত তার নৃত্য পরিবেশন করেন। দেবী দূর্গার বন্দনার মাধ্যমে সৌরভ তার নৃত্য শুরু করেন।এরপর অভিনয়ের অঙ্গে তিনি মীরার ভজন ‘‘হরি তুমি হর’’ যেখানে তিনি দ্রোপদীর বস্ত্র হরন ঘটনাটির বিবরণ দেন ও অত্যন্ত দক্ষতার সহিত তিনি এই উপস্থাপনাটি করেন। সর্বশেষ নিবেদনে  তিনি তিন তাল পরিবেশন করেন। যেটি ১৬ মাত্রায় নিবদ্ধ ছিল। খুবই সুন্দর পদ সঞ্চালনার মাধ্যমে তিনি নৃত্য পরিবেশন করেন এবং গুনিজনদের প্রশংসা অর্জন করেন। সবশেষে মণিপুরী নৃত্য পরিবেশন করেন ভবানীপুর বৈকালী অ্যাসোসিয়েশন এর নৃত্য শিল্পীরা। যাদের উপস্থাপনা বসন্তরাস অত্যন্ত গুনমুº্ধকর পরিবেশনা, এউ সমগ্র নৃত্যটি পরিচালনা ও রাধার চরিত্রে অংশ গ্রহন করেন পূর্বিতা মূখার্জী, কৃষ্ণের ভূমিকায় ছিলেন রিন্টু দাস, এ ছাড়াও সখীগন ছিলেন শ্রমনা সাহা,প্রজটঞা ব্যানার্জী, অরুনধূতি দত্ত এবং শ্রেষ্টা বন্দোপাধ্যায় প্রমূখ।
এই সমগ্র নৃত্যানুষ্ঠানটির স্চালনার দায়িত্বে ছিলেন শুভদীপ চক্রবর্ত্তী, সমগ্র অনুষ্ঠানের শেষে নিপুন নৃত্যালয়ের পক্ষ থেকে ‘‘নৃত্য নিপুন’’ সম্মানে ভূষিত করা হয় সৌরভ রায এবং পূর্বিতা মূখার্জীকে।
নিপুন নিত্যালয়ের কর্ণধার মনোজিৎ সাহা সমাপ্তি ভাষনে বলেন কিছু ভবিষ্যত পরিকল্পনার কথা, যাহা ভারতীয় শাস্ত্রিয় নৃত্যেও পরবর্তী প্রজন্মকে অনুপ্রানিত করবে। নিপনু নৃত্য উৎসব ছাড়াও আরো কিছু কর্মসূচীর কথা উল্লেখ করে বলেন তিনি যুব প্রজন্মের জন্য একটি আলাদা করে শাস্ত্রিয় নৃত্য উৎসব করতে চান । যেখানে নতুন প্রজন্মের যুবক ও যুবতীরা তাদের শাস্ত্রিয় নৃত্য পরিবেশন করার সুযোগ পাবে। এ ছাড়া তিনি সারা বৎসর ধরে বিভিন্ন সময়ে ভরত নাট্যম নৃত্যে কর্মশালার আয়োজন করবেন। শুধু তাই নয় তিনি আরো বলেন , পুরুষ নৃত্য শিল্পীদের জন্য বিশেষ করে তিনি পুরুষ নৃত্য উৎসব করতে আগ্রহী।
নিপুন নৃত্যালয়ের কর্নধার মনোজিৎ সাহা এই রকম ভারতীয় শাস্ত্রীয় নৃত্যকে এত সুন্দর ভাবে প্রচার ও প্রসার করার জন্য , পরবর্তী প্রজন্মের কাছে দৃষ্ঠান্ত হয়ে উঠুক এটাই প্রত্যাশা উপস্থিত গুণিজনদের । এই রকম একটি সুন্দর শাস্ত্রিয় নৃত্যে কর্মকান্ড, মনোজিৎ সাহা ও নিপুন নৃত্যালয়ের পাশে পশ্চিমবঙ্গ সরকার তথা ভারত সরকারের সংস্কৃতি দপ্তর তাদের সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলে ভবিষ্যতে আরও এ রকম সুন্দর রুচিশীল ও মন্ােজ্ঞ অনুষ্ঠান আমাদের সমাজে উপহার দিতে পারবেন বলেও আশা করছেন  গুণিজনেরা।

   



 

বাংলানিউজ লাইন.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: